অমিতাভ ও জ্যাকি চ্যানের বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ!

অমিতাভ ও জ্যাকি চ্যানের বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ!

99
0
SHARE
পানামার একটি আইনি সংস্থার ফাঁসকৃত বিপুল নথিপত্রে উঠে এসেছে হলিউড তারকা জ্যাকি চ্যান ও বলিউড কিংবদন্তী অমিতাভ বচ্চনের নাম। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা কর ফাঁকি দিয়েছেন। অমিতাভ ছাড়া নাম এসেছে আরেক বলিউড তারকা সাবেক বিশ্বসুন্দরী ঐশ্বরিয়া রায়েরও।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে এমনটা দাবি করা হয়। সেখানে বলা হয়,অমিতাভ ও ঐশ্বরিয়া  মোস্যাক ফোনসেকা নামে পানামার একটি আইনি সংস্থার সাহায্য নিয়ে নিজেদের আয়ের বিদেশি উৎস দেখিয়ে আয়কর ফাঁকি দিয়েছেন।
পানামা এমন একটি দেশ, যেখানে বিদেশি কোম্পানি এবং বিনিয়োগে বিশেষ করছাড়ের সুবিধা পাওয়া যায়। অমিতাভ এবং ঐশ্বরিয়া সেই সুযোগটাই নিয়েছেন বলে দাবি করেছে রিপোর্টটি।
নথি হতে জানা যায়, ১৯৯৫-এ অমিতাভের কোম্পানি অমিতাভ বচ্চন কর্পোরেশন লিমিটেড(এবিসিএল) যাত্রা শুরু করার আগে অমিতাভের পরিচালনায়  চারটি কোম্পানি পানামায়, একটি ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডে এবং একটি বাহামায় নথিভুক্ত হয়।
যদিও সেগুলি আদতে ছিল ভারতীয় কোম্পানি। ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ড এবং বাহামাও করছাড়ের ক্ষেত্রে পানামার মতোই সুযোগ-সুবিধা দিয়ে থাকে বিদেশিদের।
এই প্রতিষ্ঠানগুলোর পুঁজি পাঁচ থেকে ৫০ হাজার ডলারের মধ্যে ছিল বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।
৩৫টিরও বেশি দেশের শতাধিক গণমাধ্যম এক হয়ে মোস্যাক ফোনসেকার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করে। সেখান থেকেই বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। ভারতে অমিতাভ-ঐশ্বরিয়া ছাড়াও উঠে এসেছে বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর নাম। সবমিলিয়ে এই সংখ্যা ৫০০।
২০০৮ সালে শুরু করা এক প্রতিষ্ঠানেও পরিচালকের দায়িত্বপালন করেন ঐশ্বরিয়া। পানামার ওই কোম্পানির শেয়ারহোল্ডারও ছিলেন তিনি।
তবে তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন ঐশ্বরিয়ার মিডিয়া উপদেষ্টা। বিশ্বব্যাপী ফোনেসকার অন্যান্য গ্রাহকদের মতো তাদের বিরুদ্ধেও অসৎ উদ্দেশ্যের কোনো প্রমাণ নেই।
এদিকে হলিউড তারকা জ্যাকি চ্যানের বিরুদ্ধেও অন্তত ছয়টি কোম্পানির মালিকানার কথা বলা হয়েছে। তবে তার বিরুদ্ধেও কর ফাঁকির কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো মন্তব্যও করেননি অমিতাভ ও জ্যাকি চ্যান।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY