মাননীয় অবৈধ প্রধানমন্ত্রী আমরা তাজ্জবিত হয়েছি!!

মাননীয় অবৈধ প্রধানমন্ত্রী আমরা তাজ্জবিত হয়েছি!!

45
0
SHARE

মাননীয় অবৈধ প্রধানমন্ত্রী আমরা তাজ্জবিত হয়েছি!!
আজকে ৮জন যুদ্ধাপরাধীর রায় দেওয়া হলো অথচ কি তাজ্জব ব্যাপার কাউকেই কোন বচন দিতে শুনলাম না!!
শাহবাগে বিরিয়ানির খোজে “ফাসি চাই” স্লোগানে নেই কোন সার্কাস পার্টির গাঞ্জা সেবন মেলা!
অবৈধ মন্ত্রীদের নেই কোন বিশ্ব জয় করা সেই অমিয় বচন “শেখ হাসিনার আমলেই যুদ্ধাপরাধীর শাস্তির ব্যাবস্থা হল”
শাহরিয়ার কবিরের কোন প্রেস ব্রিফিং পেলামনা একাত্তর টিভির ফারহানার কন্ঠের কোন এক ফাঁকে!!
জাফর ইকবালের জরুরী কোন কলাম ও দেখলামনা কোন পত্রিকার নিউজ ফিডে!!
আনিসুল হকের “আমাকে আনন্দের কান্না কাঁদতে দাও” নামক শিরোনাম ও দেখলামনা প্রথম আলোর বিশেষ কলামে !!
রাস্তায় ১০ টাকার খদ্দের খোজা পতিতার মত মুন্নি সাহার কন্ঠেও আজ কোন অনুভুতির প্রশ্ন শুনলামনা!!
যুদ্ধাপরাধীদের এলাকায় মিষ্টি মুখের নিউজ দূরবীক্ষণ যন্ত্র দিয়েও কোন নিউজে পেলামনা!!
অথচ বিগত ফাসিগুলাতে ও রায়ের দিনে শাহবাগে ছিল বিরিয়ানির বিজয় মিছিল, জাফর ইকবালের কলামে ছিল আগুন ঝড়া বানী, শাহরিয়ার কবিরের ব্রিফিংয়ে ছিল মুক্তিযুদ্ধের লাল চেতনা, মুন্নি সাহা ও একাত্তর টিভির ফারহানার কন্ঠে ছিল খদ্দের খোজা পতিতার অনুভুতি, যুদ্ধাপরাধীদের এলাকায় ছিল মিষ্টি বিতরনের প্রতিযোগিতা!!
কি তাজ্জবের ব্যাপার তাইনা!??

তবে কি অবৈধ প্রধানমন্ত্রী এই তাজ্জবের কথাই আমাদের বলেছিলেন!!??
আসলে এরা কখনোই যুদ্ধাপরাধীর বিচার চায়নি,  এরা চেয়েছে বিএনপি – জামায়াতের প্রধান সারির কয়েকজন নেতাকে যুদ্ধাপরাধীর কালিমা লেপন করে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দিতে, পাশাপাশি বিএনপির গায়ে যুদ্ধাপরাধীর কালিমা লেপন করতে।
এরা কখনোই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্পর্কে নুন্যতম ধারনা ও রাখেন না!

এরা কখনো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারন ও করেন না!

এরা শুধু চেয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের নামে বানিজ্য করে সরকারি কোটা ব্যাবহার করে নিজেদের পকেটকে সুইস ব্যাংক বানিয়ে নিতে।

এরা চেয়েছে যুদ্ধাপরাধীর বিচারের নাম করে সাধারন মানুষের আবেগ নিয়ে খেলা করে বিশ্বের বুকে নিজেদেরকে হিরো সাজাতে।

এরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করে মুক্তিযুদ্ধকে কলংকিত করেছে।
এরাই হল আসল যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধিনতার শত্রু।

 

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY