যুক্তরাষ্ট্রের কোর্টে জয়ের বিরুদ্ধে ৫০০ মিলিয়ন ডলারের মামলা: আযমীকে অপহরণ

যুক্তরাষ্ট্রের কোর্টে জয়ের বিরুদ্ধে ৫০০ মিলিয়ন ডলারের মামলা: আযমীকে অপহরণ

871
0
SHARE

তাজউদ্দীন:

আবারও যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল কোর্টে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের বিরুদ্ধে ৫০০ মিলিয়ন ডলারের মামলা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র হতে প্রকাশিত বিশ্বখ্যাত নিউইয়র্ক পোস্ট পত্রিকা এ খবরটি প্রকাশ করে।

প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, প্রবাসী বাংলাদেশি-আমেরিকান জ্যাকব মিল্টন নামে একজন মিডিয়া ব্যক্তিত্ব জয়ের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণবাবদ এ মামলাটি করেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, তার মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বাঁধাদান, বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা অবৈধভাবে ব্যবহার করে ই-মেইলে হুমকি প্রদান ও অগ্নিসংযোগ এবং ভাংচুরের মাধ্যমে তার মিডিয়া ব্যবসায় ক্ষতিসাধনের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল কোর্টে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের বিরুদ্ধে ৫০০ মিলিয়ন ডলারের এই ক্ষতিপুরণ মামলাটি দায়ের করেছেন।

আমেরিকার ব্রকলীন কোর্টে মিল্টন সজীব জয় ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করেন।

এর আগে মার্কিন আদালত জয়ের বিরুদ্ধে ৩০০ মিলিয়ন ডলারের অর্থপাচারের সুস্পষ্ট অভিযোগে মামলা হয়েছিল। সে মামলা এখনও তদন্তনাধীন রয়েছে।

আর সেই মানি লন্ডারিং মামলার নথিপত্র সংগ্রহে থাকায় জয়ের দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশের ভয়ে জোর করে গ্রেপ্তার করা হয় প্রথিতযশা সাংবাদিক শফিক রেহমানকে। জয়ের দুর্নীতির বিষয়টি ধামাচাপা দিতে সাজানো ‘জয় অপহরণ ও হত্যাচেষ্টা’ নাটক। সে নাটকের ধামায় চাপা দিতে মিথ্যা অভিযোগ তোলা হয় প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিক সিজার, প্রথিতযশা সাংবাদিক শফিক রেহমান ও মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে। তাদেরকে দায়ী করা হয় জয় হত্যা চেষ্টার সাজানো দায়ে।

আর সে ধারাবহিকতায় অপহরণ করা হলো সাবেক সেনা অফিসার বিগ্রে. জে: (অব:) আব্দুল্লাহেল আমান আল আযামীকে। সে সময় আওয়ামীলীগের কয়েকটি পত্রিকা আযমীও জয় হত্যা চেষ্টার সাথে জড়িত বলে সংবাদ পরিবেশন করে। তবে আযমী সেসব মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সংবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানায়। এবার মিল্টন বিশ্বাসের করা ৫০০ মিলিয়ন ডলারের মামলার বিষয়টি ধামাচাপা দিতে আযমীকে অপহৃত করা হলো।

গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক সূত্র জানায়, যুক্তরাষ্ট্রে জয়ের বিরুদ্ধে ৫০০ মিলিয়ন ডলার মামলার ইস্যু ধামাচাপা দিতেই বিগ্রে. জে: (অব:) আব্দুল্লাহেল আমান আল আযামীকে অপহরন করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কুলাঙ্গার পুত্র জয় একের পর এক অর্থ আত্মসাৎ করছে, পাচার করছে হাজার হাজার কোটি টাকা, ব্যাংকের টাকা ডাকাতি করে নিয়ে যাচ্ছে, ক্ষমতার অপব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রবাসী বাংলাদেশিদেরও হুমকি ধামকি ও ক্ষতিসাধন করছে। আর যখন সেসব তথ্য ফাঁস হয়ে যেতে থাকে তখনই উল্টো দৃষ্টি ভিন্ন খাতে ফেরাতে দেশে গ্রেপ্তার, গুম ও অপহরন নাটক শুরু হয়। যেভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল শফিক রেহমানকে। অপপ্রচার চালানো হয়েছিল সিজারের বিরুদ্ধে।

নতুন ইস্যু তৈরি করে জনগনের দৃষ্টি ভিন্নখাতে ফেরাতে আযমীকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। রেড দিয়ে বাসা থেকে সাবেক সেনা অফিসারকে তুলে নিয়ে গেছে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। কিন্তু বেমালুল অস্বীকার করা হচ্ছে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে। এর আগে বিএনপি ও এক শীর্ষ ব্যবসায়ীর পুত্র হুম্মাম কাদের ও আরমানকে একইভাবে অপহৃত করেছে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসী আওয়ামীলীগের পুলিশ বাহিনী।

যুক্তরাষ্ট্রের এক মিডিয়া ব্যক্তিত্ব জানান, জ্যাকব মিল্টন সাথে আযমী পরিবারের সম্পর্ক রয়েছে এরকম ধারণা থেকেই জয়ের নির্দেশে তাকে তুলে নিয়ে গেছে গোয়েন্দা পুলিশ। শেখ পরিবারের ধারণা আযমী পরিবারের প্ররোচনায় মিল্টন বিশ্বাস জয়ের বিরুদ্ধে এ মামলাটি করেছে। তবে আযমী পরিবার ও মিল্টন বিশ্বাস এ দাবি অস্বীকার করেছেন।

উল্লেখ্য, শেখ হাসিনার পুত্র সজীব জয় একের পর এক ব্যাংক ডাকাতী, অর্থ পাচার ও হুমকি ধামকি দিয়ে চাঁদাবাজি করেই যাচ্ছে। তার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতেই দুটি মামলা রয়েছে। মামলা হলেই ধামাচাপা দিতে রাষ্ট্রীয় শক্তি ব্যবহার করে মিথ্যা নাটক সাজানো হয়। হাসিনার এ দুর্নীতিবাজ পুত্রকে নিয়ে ভয় ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশি ও প্রবাসী নাগরিকরা।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY