চার দিনের রিহ্যাব মেলা শেষ ফ্ল্যাট কেনায় ক্রেতাদের ভালো সাড়া

চার দিনের রিহ্যাব মেলা শেষ ফ্ল্যাট কেনায় ক্রেতাদের ভালো সাড়া

69
0
SHARE

১২টি ফ্ল্যাট ও বাণিজ্যিক জায়গা বিক্রি হয়েছে। সন্ধ্যা পর্যন্ত ২০ জন গ্রাহক ফ্ল্যাট কেনার অঙ্গীকার করেছেন। প্রকল্প সরেজমিন দেখে তারপর ফ্ল্যাট কেনার বিষয়টি চূড়ান্ত করবেন তারা। মেহেদীবাগে অত্যাধুনিক ক্রিমসন ক্লোভার আবাসন প্রকল্পে অবিক্রীত থাকা সর্বশেষ দুটি ফ্ল্যাটও (প্রায় চার কোটি টাকায়) বিক্রি হয়ে গেছে।
নগরের র্যাডিসন ব্লু হোটেলে আবাসন ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত চার দিনের মেলার শেষ দিন গতকাল রোববার সন্ধ্যা সাতটায় এমন তথ্য দিলেন সিপিডিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইফতেখার হোসেন। তিনি বলেন, ‘শুধু আমার নয়, ভালো কোম্পানি হলে ফ্ল্যাট অবিক্রীত থাকে না, এবার মেলায় সেটি প্রমাণ হয়েছে। গ্রাহকেরা একটু দাম বেশি দিয়ে হলেও প্রতিষ্ঠিত কোম্পানি থেকেই ফ্ল্যাট কিনছেন। আবার মাঝারি আকারের ফ্ল্যাটের চাহিদা বেশি থাকলেও এবার বিলাসবহুল ফ্ল্যাট বিক্রিতেও সাড়া পাওয়া গেছে।’
গত রাতে রিহ্যাবের আবাসন মেলা শেষ হয়। মেলা ঘুরে দেখা যায়, শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির কারণে ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ভিড় ছিল বেশি। তবে গতকাল রোববার কর্মদিবস হওয়ার কারণে দিনের বেলায় ভিড় কম থাকলেও সন্ধ্যার পর ভিড় দেখা গেছে। আবাসন প্রতিষ্ঠান ছাড়াও ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে গৃহঋণের খোঁজখবর নিয়েছেন ক্রেতা-দর্শনার্থীরা। কয়েকটি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবার মেলায় ৯ থেকে সাড়ে ৯ শতাংশ হারে ফ্ল্যাট কেনায় ঋণ দিচ্ছে।
গতকাল বিকেলে মেলা ঘুরে দেখছিলেন রিহ্যাবের চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির কো-চেয়ারম্যান আবদুল কাদের জিলানী। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, মেলা কতটুকু সফল হয়েছে সেটি নির্ভর করে গ্রাহকেরা পছন্দের ফ্ল্যাটের খোঁজখবর কেমন নিচ্ছেন কিংবা মেলা থেকে তথ্য নিয়ে কতজন প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখছেন। এবার সাড়া অন্য সময়ের তুলনায় বেশি ছিল। তিনি জানান, তাঁর নিজের প্রতিষ্ঠান এমডিসির স্টলে চার দিনে আটটি ফ্ল্যাট বিক্রি হয়েছে। বিকেল পর্যন্ত ১২টি ফ্ল্যাট বিক্রির অঙ্গীকার পাওয়া গেছে। এর বাইরে অনেকে প্রকল্প এলাকা ঘুরে কথাবার্তা চূড়ান্ত করবেন বলে জানিয়েছেন।
মেলায় ফ্ল্যাটের খোঁজখবর নিচ্ছিলেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা শামসুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘কয়েকটি প্রতিষ্ঠান থেকে খোঁজখবর নিয়েছি। বুকিং দেওয়ার জন্য একটু সময় নিচ্ছি। তবে মেলায় অনেক প্রতিষ্ঠান একসঙ্গে হাতের কাছে পাওয়ায় তুলনামূলক বিচার করার সুযোগ পাচ্ছি।’
মেট্রো অ্যাসেটস লিমিটেডের পরিচালক মিজানুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, মেলায় সর্বনিম্ন ৩৫ থেকে সর্বোচ্চ ৭০ লাখ টাকা দামের ফ্ল্যাট এনেছেন তাঁরা। ছোট আকারের ফ্ল্যাটের প্রতি গ্রাহকদের সাড়া ছিল ভালো। পূর্ব রামপুর, পিসি রোড, হালিশহর হাউজিং এস্টেট ও শুলকবহরে চারটি প্রকল্পে ভালো সাড়া পাওয়া গেছে বলে জানালেন তিনি।
মেলায় ছোট ফ্ল্যাটের পাশাপাশি বড় ফ্ল্যাটের বিক্রি ও বিক্রয় অঙ্গীকার পাওয়ার কথা জানালেন র্যাংকস এফসি প্রপার্টিজের ব্যবস্থাপক মো. নাজমুল হোসেন। তিনি জানান, সাতটি ফ্ল্যাট বিক্রি হয়েছে। প্রতিটি ফ্ল্যাটের দাম দেড় কোটি টাকার ওপরে।
রিহ্যাবের সহসভাপতি ও চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির চেয়ারম্যান এস এম আবু সুফিয়ান বলেন, ‘এবার মেলায় প্রত্যাশা ছিল অন্তত ২৫০ কোটি টাকার প্লট ও ফ্ল্যাট বিক্রি হবে। তবে গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত ৩০০ কোটি টাকার বেশি প্লট ও ফ্ল্যাট বিক্রি ও বিক্রির অঙ্গীকার পাওয়া গেছে। আবাসন খাত যে মন্দার সময় থেকে বেরিয়ে আসছে, ক্রেতাদের সাড়া পেয়ে এই ইঙ্গিত পাচ্ছি।’ তিনি জানান, মেলা শেষে স্টলগুলোতে জরিপ করে কত বিক্রি হয়েছে তা হিসাব করা হবে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY